মঙ্গলবার, ২৮ ফেব্রুয়ারী, ২০১২

লিব্রে অফিস, গিম্প ও লিব্রে ক্যাড প্রশিক্ষণ কর্মশালা

প্রশিক্ষণের স্থান:
প্রেসিডেন্সী ইউনিভার্সিটি, বনানী ক্যাম্পাস (কম্পিউটার ল্যাব)
১০ কামাল আতাতুর্ক এভিনিউ, বনানী, ঢাকা - ১২১৩

প্রশিক্ষণের বিষয়:
লিব্রে অফিস রাইটার (ডকুমেন্ট), লিব্রে অফিস ক্যাল্ক (স্প্রেডশীট), লিব্রে অফিস ইমপ্রেস (প্রেজেন্টেশন), লিব্রে ক্যাড (ডিজাইন), গিম্প (ছবি সম্পাদনা)

প্রশিক্ষণ ফী:
৮০০ টাকা। (= প্রশিক্ষণ+লাঞ্চ+রিফ্রেশমেন্ট+হ্যান্ডনোট+পরীক্ষা+সার্টিফিকেট)

সময়সূচী: ০৩-মার্চ-২০১২, শনিবার (সকাল ১০:০০ - বিকাল ৫:৫০ )
সকাল ১০:০০ - দুপুর ১২:৩০
LibreOffice Writer: ভূমিকা:লিব্রে অফিস কী?; সংক্ষিপ্ত ইতিহাস; ডাউনলোড এবং সেটআপ। প্রাথমিক প্রস্তুতি: সফটওয়্যারের গতি বাড়িয়ে নিন; লেখার খসড়া কাঠামো তৈরী করা; সঠিক নিয়মে শিরোনাম দেয়া; নথির বিভিন্ন অংশ (কভার বা ফার্স্ট পেজ, ইনডেক্স পেজ, ডিফল্ট); একসাথে উলম্ব এবং আনুভূমিক পৃষ্ঠা; পছন্দসই পৃষ্ঠা সজ্জা; হেডার ফুটার; পৃষ্ঠার নম্বর দেয়া; প্রতি পৃষ্ঠায় অধ্যায়ের নাম দেখানো।মূল লেখালেখি: নেভিগেশন; কপি বা অনুলিপি নিয়ে আসা; ছবি যোগ করা; ছবির অবস্থান নিয়ন্ত্রণ; ছবি মেরামত; ফর্মূলা বা সূত্র লেখা; টেবল তৈরী; ট্যাবের ব্যবহার। নথির পেশাদার চেহারা: লেখার বৈশিষ্ট নিয়ন্ত্রণ (পেজ ব্রেক, ফন্ট, প্যারাগ্রাফ, আউটলাইন নাম্বারিং, স্পেসিং, শিরোনাম বা হেডিং); সূচীপত্র তৈরী করা; সূচীপত্রের বৈশিষ্ট নিয়ন্ত্রণ; ছবি এবং টেবলের সূচীপত্র বানানো; প্রতিবিম্ব পৃষ্ঠা বৈশিষ্ট; যে কোন প্রিন্টারে প্রিন্ট উপযোগী পিডিএফ তৈরী। বাংলা নথি লেখার জন্য করণীয়সমূহ: বাংলা সেট করা; ফন্ট সেট করা; আউটলাইন নাম্বারে বাংলা সংখ্যা; পৃষ্ঠা নাম্বারে বাংলা সংখ্যা; সূচীপত্রে বাংলা সংখ্যা; বাংলা মেনু। উদাহরণ: ধাপে ধাপে নিজে করি; ভিজিটিং কার্ড তৈরী করা; অফিসের প্যাড তৈরী করা; ক্যাশ মেমো তৈরী করা; গবেষণা সাময়িকি'র ফরম্যাট মেনে লেখা ঠিক করা; সম্পুর্ন রিপোর্ট বই তৈরী
LibreOffice Calc: (হিসাব নিকাশ) মেনু ও ফাংশন পরিচিতি; ফর্মূলা দেয়া; গ্রাফ প্রস্তুত করা; ডেটা থেকে প্রস্তুতকৃত গ্রাফের ইকুয়েশন বানানো; প্রিন্ট অপশন ঠিক করা; ফর্ম দিয়ে ডেটা এন্ট্রি; ড্রপ ডাউন ডেটামেনু; ডেটা ভ্যালিডিটি; গ্রেডশীট বানানো; ব্যালেন্স শীট বানানো, অন্য সফটওয়্যার/ডেটালগারের ডেটাকে ক্যালকে খোলা এবং সেখান থেকে বিশ্লেষন উপযোগী ডেটা বের করে আনা
LibreOffice Impress: (প্রেজেন্টেশন তৈরী করা) প্রেজেন্টেশন তৈরীর সাধারণ নিয়মাবলী; বিভিন্ন রকম মাস্টার ব্যাকগ্রাউন্ড ব্যবহার করা; সাধারণ এবং ব্যাখ্যামূলক এনিমেশন যুক্ত করার কৌশল; বাইরের ফাইল, ছবি ইত্যাদির লিংক তৈরী করা; প্রেজেন্টেশনের মধ্যেই বিশেষ কোন পৃষ্ঠায় যাওয়ার লিংক তৈরী
দুপুর ১২:৩০ - দুপুর ২:০০
মধ্যাহ্ন বিরতি
দুপুর ২:০০ - বিকাল ৪:৩০
GIMP: গিম্প দিয়ে সহজ ছবি এডিটিং: মেনু ও ফাংশনগুলোর পরিচিতি; ছবির উজ্জ্বলতা ঠিক করা; নেটে আপলোড করার আগে ছবির সাইজ কমানো; স্ক্যান করা ছবি থেকে অনাকাঙ্খিত ব্যাকগ্রাউন্ড (রং) বাদ দেয়া; ছবি থেকে অনাকাঙ্খিত বস্তু বাদ দেয়া; স্ক্রীনশট নেয়া; ছবি কাটাকুটি করে নতুন ছবি বানানো; সাদাকালো ছবিকে রঙিন করা; খুব সাধারণ এনিমেশন বানানো, ডকুমেন্টে ব্যবহারের জন্য ট্রান্সপারেন্ট ব্যাকগ্রাউন্ডের ছবি বানানো
LibreCAD (2D ইঞ্জিনিয়ারিং ড্রইং): লিব্রে ক্যাড পরিচিতি, ইতিহাস; বেসিক ড্রইং মেনু পরিচিতি; লাইন, বৃত্ত, প্যারাবোলা, অংকন; লেয়ার; লাইনের পুরুত্ব, প্যাটার্ন; প্রিন্টিং; যে কোন জায়গা থেকে প্রিন্ট উপযোগী পিডিএফ ডকুমেন্ট তৈরী করা; মাপজোক সহ বাড়ির ড্রইং; স্ট্রাকচারাল ড্রইং; অটোক্যাডের ড্রইং লিব্রে ক্যাডে দেখা ও এডিট করা
বিকাল ৪:৩০ - বিকাল ৪:৫০
চা-বিরতি
বিকাল ৪:৫০ - বিকাল ৫:২০
প্রশ্নোত্তর পর্ব
বিকাল ৫:২০ - বিকাল ৫:৫০
মানযাচাই পরীক্ষা

প্রশিক্ষক:
ড. মিয়া মোহাম্মদ হুসাইনুজ্জামান (শামীম)
সহযোগী অধ্যাপক, সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং, প্রেসিডেন্সী ইউনিভার্সিটি
এবং, তথ্য ও গবেষণা সচিব, ফাউন্ডেশন ফর ওপেন সোর্স সলিউশনস বাংলাদেশ


নিবন্ধন (রেজিস্ট্রেশন):
ড. মিয়া মোহাম্মদ হুসাইনুজ্জামান, (০১৭৩১ ২১৬ ৪৮৬)
কক্ষ নং ৫২৩, গুলশান ক্যাম্পাস, ১১-এ, রোড-৯২, গুলশান-২, ঢাকা-১২১২
এছাড়া বনানী ক্যাম্পাসের ECE অফিসের মোঃ ইকবাল হোসেনের কাছেও প্রাথমিক নিবন্ধন করা যাবে।

নিবন্ধন করার জন্য নিম্নলিখিত তথ্যগুলো সহ টাকা জমা দিতে হবে:
(সবগুলো ফিল্ডই যে দিতে হবে এমন কোন বাধ্যবাধকতা নাই)
1. Name:
2. Date of Birth:
3. Sex: Male/Female
4. Address:
5. Country:
6. Email:
7. Phone:
8. Mobile:
9. SMS Number:
10. Education:
11. Computer Skills:
12. Designation:
13. Organization:
14. Presidency ID: (শুধুমাত্র যদি প্রেসিডেন্সীর ছাত্র হয় তাহলে এটা দিতে হবে, নতুবা এটা দেয়ার দরকার নাই)


এই প্রশিক্ষণ চাহিদার পরিপ্রেক্ষিতে দুই সপ্তাহ পর শুক্র কিংবা শনিবারে আবার আয়োজন করা যাবে।

সম্পুরক তথ্য:
বিস্ময়কর ফ্রী এবং মুক্তসোর্স অফিস সফটওয়্যার ওপেন অফিস দিয়ে অন্য বাণিজ্যিক অফিস সফটওয়্যারের সমস্ত কাজই সহজে করা যায়। পাইরেসি এড়িয়ে খরচ বাঁচানোর জন্য এখন ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও অফিসগুলোও ওপেন অফিস ব্যবহারে আগ্রহী হচ্ছে এবং দক্ষ কর্মী খুঁজছে। ব্যক্তিগত বা বাণিজ্যিক ব্যবহারের জন্য সফটওয়্যারটি উইন্ডোজ, লিনাক্স এবং ম্যাকের উপযোগী ইনস্টলার ফাইল আকারে ডাউনলোড করা যায়।
[ মাইক্রোসফট অফিস প্রফেশনাল ভার্সনের দাম ৫০০ ডলার, যার ফ্রী বিকল্প ওপেন/লিব্রে অফিস। ফ্রী গিম্প দিয়ে সাধারণ ব্যবহারকারীর ফটোশপের (দামঃ ৬৯৯ ডলার) প্রায় সব কাজই করা যায়। লিব্রে ক্যাড/কিউ ক্যাড (2D) দিয়ে অটোক্যাডের (দামঃ ৩৯৯৫ ডলার) মত কাজ করা যায়।]   Microsoft Office 2010 Price List India
[২০১৩ সাল হতে TRIPS চুক্তির আওতায় সফটওয়্যার আইনসংগতভাবে কিনে ব্যবহার করতে আরও কড়াকড়ি আরোপ করা হবে।]

অতিরিক্ত তথ্য:
উপযুক্ত প্রশিক্ষণের সুবিধা না থাকাতে অনেকেই ভয়ে পাইরেসীর লজ্জা ও শৃঙ্খল ভেঙ্গে স্বাধীনতার দিকে এগোতে চান না। আবার প্রশিক্ষিত জনবল না থাকাতে কর্পোরেট লেভেলেও এই ধরণের ওপেন সোর্স প্রোগ্রামগুলো আগ্রহ থাকা সত্বেও চালু করতে পারে না। তাই আনুষ্ঠানিক সার্টিফিকেশন কোর্স দরকার ছিল।
এছাড়া এই প্রশিক্ষণ কর্মসূচী থেকে ওভারহেড খরচ, ল্যাব ব্যবহারের খরচ করার পর ফাউন্ডেশনের জন্য কিছুটা ফান্ড সংগ্রহ করা যাবে বলে আমরা আশাবাদী, যা পরবর্তী সচেতনতামূলক কার্যক্রম সফলভাবে পরিচালনা করতে কারো মুখাপেক্ষী করে রাখবে না। একেকটা বড় ব্যানার তৈরী করতেই (প্রিন্ট) কয়েক হাজার করে টাকা লাগে যা নিজেদের পকেট থেকে বার বার সংগ্রহ করা কষ্টকর।
আমাদের বিভিন্ন অনুষ্ঠানে এরকম আনুষ্ঠানিক প্রশিক্ষণের জন্য অনেকেই খোঁজ খবর নেয়, আগ্রহ প্রকাশ করে। তাই এটা এবার শুরু করবো বলেই ঠিক করলাম। খরচ কমানোর জন্য প্রশিক্ষণটা প্রেসিডেন্সী ইউনিভার্সিটির অধীনে সার্টিফিকেট কোর্স হিসেবে করতে হল। নতুবা শুধু ল্যাব ভাড়া বাবদ দিনে ১০ হাজার টাকা দিতে হত। আমি প্রেসিডেন্সীর ফ্যাকাল্টি বলে এখন সেই তুলনায় অনেক কম খরচে আয়োজন করা যাচ্ছে। নতুবা ফী ১৫০০ টাকা ধার্য করতে হত।
উল্লেখ্য যে এই কোর্সটা সাধারণ চাকুরীজীবি এবং ছাত্রদের চাহিদার কথা মাথায় রেখে পরিকল্পনা সাজানো হয়েছে। যাঁরা প্রশিক্ষণ নিতে আসবেন তাঁরা অন্ততপক্ষে কম্পিউটারের বেসিক কাজগুলো (ইনস্টল, অন/অফ, অফিস সফটওয়্যার ব্যবহার করে লেখালেখি) করতে পারেন বলে ধরে নেয়া হচ্ছে, এবং এই প্রশিক্ষণে একটু উন্নততর ডকুমেন্টেশন টেকনিকগুলো শিখানোর চেষ্টা করবো।

প্রশিক্ষণ বিষয়ে আরও বিস্তারিত তথ্য:
ফাউন্ডেশন ফর ওপেন সোর্স সলিউশনস বাংলাদেশ (www.fossbd.org)
লোমানী জেবী জোয়ারদার, প্রশিক্ষণ সমন্বয়কারী: ০২-৯০১ ৫৮১৬, ০১৬৭৮ ৬১৩ ৩৭১
জেড এম মেহেদী হাসান (মেহেদী), সভাপতি: ০১৬৭৮ ৭০২ ৫৩৩

৩টি মন্তব্য:

রাইয়ান Raiyan বলেছেন...

শামীম ভাই, অনেক দিন ধরে ওপেন অফিস ব্যবহার করছি এবং সুখেই আছি। লিব্রে অফিসের সাথে ওপেন অফিসের পার্থক্য বা সুবিধা-অসুবিধা কি অনেক ?

Miah M. Hussainuzzaman বলেছেন...

পার্থক্য নাই বললেই চলে। ওপেন অফিস ডেভেলপ হয়েছিল সান মাইক্রোসিস্টেমের পৃষ্ঠপোষকতায়। কিছুদিন আগে যখন ওরাকল, সানকে কিনে নিল তখন একবার ওপেন অফিসকে বাণিজ্যিক করা হতে পারে এমন একটা কথা ওনাদের একজন কর্মকর্তা বলেছিলেন। ফলে স্বাধীনতা রক্ষার্থে এর ডেভেলপারগণ সমস্ত কোড নিয়ে বের হয়ে এসে লিব্রে অফিস ফাউন্ডেশন প্রতিষ্ঠা করেন এবং এখান থেকে পরবর্তী উন্নয়নগুলোকে লিব্রে অফিস নামে বের করছেন। উবুন্টু সহ অনেক লিনাক্স ডিস্ট্রোও ওপেন অফিসের বদলে লিব্রে অফিস পোর্ট করা শুরু করে তারপর থেকে।
পরে অবশ্য ওরাকল তাঁদের পরিকল্পনা থেকে পিছু হটে আসে, কিন্তু যা হবার তা হয়েই গেছে। এখন ওপেন আর লিব্রে অফিস দুইটাই আছে, প্রায় একই জিনিষ দুই নামে।

bten135 বলেছেন...

fine