সোমবার, ২৩ মার্চ, ২০২০

প্যাচাল

একটু অন্যকিছু করার চেষ্টা।

শনিবার, ১৭ আগস্ট, ২০১৯

ভুটান ভ্রমণ - ০৩

ভুটান ভ্রমণ - ০১

ভুটান ভ্রমণ - ০২

৮। ৫ম দিন: পারো শহরে ঘোরাঘুরি - জাদুঘর, কাঠের ব্রীজ দেখা, কেনাকাটা

সকালের এবং বিকালের কিছু অংশ নিয়ে রিসর্টের ভিডিও

যথারীতি বুফে নাস্তা
এবার ঘুরাঘুরি শুরু
ভুটান ন্যাশনাল মিউজিয়াম, ভেতরে ছবি তোল নিষেধ, তাই বাইরে ছবি তুলি।
এটা ১৬ কিংবা ১৭ শতকে তৈরী একটা ওয়াচ টাওয়ার, জাদুঘরের ঠিক পাশেই একই বাউন্ডারির ভেতরে।
জাদুঘরের পাশে হাটাহাটির জায়গা
জাদুঘরের পাশ থেকে পারো এয়ারপোর্ট, নদী এবং জং দেখা যায়।
একটা ভিডিও দেখা যেতে পারে এবার:

জাদুঘরের পাশ থেকে অন্যদিকেও ভ্যালিটি দেখা যায়। মোটামুটিভাবে সম্পুর্ন পারো শহরই এখানে থেকে দেখা যায়।
এই যে মূল দোকানপাট ওয়ালা শহর, একটু পরে ওখানেই যাব কেনাকাটা করতে।
পারো জং দেখতে এলাম। তবে এখান থেকেই ঘুরে গেলাম। ভেতরে প্রশাসনিক অফিস আছে, আর ঢুকতে প্রবেশমূল্যও কম নয়।
গতকালের জায়গাতেই দুপুরের খাবার। আমাদের আবদার রেখে পাস্তা রান্না করেছেন, সাথে গাজরের স্যূপ। সব চেটেপুটে খেয়েছি।
এই সেই সোনম আপা, যার নামে সোনম'স হোম স্টে
রাস্তা থেকে দেখলে এমন: সোনম'স হোমস্টে।
খাওয়া দাওয়া শেষে এবার কাঠের ব্রীজ দেখতে আসলাম
এবার একটা ভিডিও দেখা যাক

কাঠের ব্রীজের প্রবেশপথ। ঠিক যেন পুনাখার জং এর মতই।
ব্রীজটিও একই রকমই বলতে হয়
ব্রীজের ঐপাশে রূপকথার বইয়ে থাকা ছবির মত নদীর পাড় দিয়ে পায়েচলা পথ।
একটা পথ উঠে গেছে জং এর দিকে; এটাও তো সেই বইয়ের ছবির মতই
এবার শহরে যাওয়া যাক:

পারো শহরের দোকানপাট, লোকজন
পারো শহরের দোকানপাট, লোকজন
পারো শহরের দোকানপাট, লোকজন - মেইন রাস্তার শাখা রাস্তায়
মনে হচ্ছে বেশ হাইফাই রেস্টুরেন্ট হবে
পেট্রল পাম্পের সাথে এটা সম্ভবত একটা ট্যাক্সি স্ট্যান্ড
রিসর্টে ফিরে রাতের বুফে খাওয়া দাওয়া
অদ্যই শেষ রাত। ডিনারের পরে শাটার টিপি।

৯। ৬ষ্ঠ দিন: চেকআউট ও ডিপার্চার

চেক আউট করে বিদায় আসন্ন। ওখানে সব হোটেল-রিসর্টেই লাগেজ টানাটানির কাজগুলো মেয়েরা করেছে!
ডিপার্চারে অপেক্ষায় কেউ কেউ ডায়েরি লেখে :)। অন্যরা এয়ারপোর্টের চমৎকার ফ্রী ওয়াইফাই নিয়ে ব্যস্ত।
বিদায় ভুটান উপর থেকে ভিডিও

১০। কিছু শেষ কথা:

- প্রথম এবং দ্বিতীয় হোটেল/রিসর্টে চেক-ইন, চেক আউট দুই সময়েই মেয়ে কর্মী এসে লাগেজ নিয়ে গিয়েছে (গাড়ি থেকে রুম এবং রুম থেকে গাড়ি)। দুই জায়গাতেই ডাইনিং, রিসেপশন সব জায়গায় মেয়ে । এসব দেখে আমার বউ আমাদের ড্রাইভার কাম গাইডকে জিজ্ঞেস করেছিল -- ছেলেরা সব কোথায়। উনি বললেন ভুটানে ২৫% ছেলে বাকী সব মেয়ে। পরবর্তীতে রিসর্টের স্যুভনির শপের মহিলা বলেছিল - তেমন কিছু নাই; পুরুষ মহিলা সমান সমান। উইকিপিডিয়াতেও পুরুষ/মহিলা = ১.০৯ দেখাচ্ছে। কাজেই এখান থেকে বুঝা যায়: গাইড সবসময় সঠিক তথ্য না-ও দিতে পারে।
- আমরা যাওয়ার আগে প্লেনের টিকেট কাটা নিয়ে বিরাট টেনশন। আমরা ফেরত আসতে চাই ১৪ তারিখে কিন্তু অনলাইনে এই তারিখে ফ্লাইট দেখায় কিন্তু বুক করতে দেয় না। আবার, ট্রাভেল এজেন্টও ১৪ তারিখের ফেরত ফ্লাইট নিয়ে খুব টেনশন। আমাদের উপস্থিতিতেই টিকেটিং অফিস থেকে তাঁর কাছে ফোনের পর ফোন আসতে থাকে -- টাকা নিয়ে আজকেই টিকেট নেন - নাহলে পরে পাবেন না। আমরা বলেছিলাম - না পেলে বাদ দেন (যেহেতু ভিসা করে ফেলেছি --- এমন কিছু বাধা পড়া ব্যাপার নাই।)। অনেক টেনশনের পর যাত্রার ৩/৪ দিন আগে টিকেট কেটে দিতে পেরেছিল। কিন্তু আসলে ফেরত আসার সময়ে দেখি ৪৮ সিটের প্লেনে সম্ভবত ২০ জনের বেশি যাত্রী ছিল না। বেশিরভাগ সিটই ফাঁকা। তাহলে ব্যাপারটা দাঁড়াচ্ছে এখানেও বিমানের মত কালোবাজারী হচ্ছে। সুতরাং ট্রাভেল এজেন্টের কাছ থেকে এই ধরণের চাপ আসলে সেটাকে একটু যাচাই করে নেবেন। 
- আমাদের ট্রাভেল এজেন্ট ওখানে পৌঁছানোর পরও মেসেঞ্জারে ফোন করে খোঁজ খবর নিয়েছে। আসার পরও ফোনে খোঁজ খবর নিয়েছে। সিট ফাঁকা প্লেনের কথা তাঁকে বলায় জানালো ভুটান আর নেপালের ফ্লাইটে এই ধরণের বদমায়েশি করে। মনোপলী বলে কথা!

(সমাপ্ত)

শুক্রবার, ১৬ আগস্ট, ২০১৯

ভুটান ভ্রমণ - ০২

পূর্বের অংশ: ভুটান ভ্রমণ - ০১

৬। ৩য় দিন: থিম্ফুতে বুদ্ধা পয়েন্ট, তেকিন যু, ক্লক টাওয়ার ও কেনাকাটা

৩য় দিন অর্থাৎ ১১-আগস্ট ২০১৯ - এদিন আমরা থিম্ফুতেই কাটাবো
সকালের নাস্তা, আজকে নতুন আইটেম হল একটা আঁচার আর পরিজ (সুপি ম্যাকারনির মত)
প্রথম গন্তব্য বুদ্ধা পয়েন্ট
বুদ্ধা পয়েন্টের বিশাল চত্বর দারুন চকচকে সব মূর্তিতে ভরা, দুরের পাহাড় আর মেঘের দৃশ্য অসাধারণ
বিশাল ভবন, বিশাল মূর্তি। এটার উপরের অংশে যাদুঘর। ভেতরটা অসাধারণ কারুকাজ আর ছোট ছোট বুদ্ধা মূর্তিতে ভর্তি কিন্তু ভেতরে ছবি তোলা নিষেধ।
ঐ যে বামদিকের হাতির ছবিটার উপরে কালো কালো পিঁপড়ার মত দেখা যাচ্ছে ওগুলো কিন্তু মানুষ। ওদের দেখলে পুরা স্থাপনাটার আকার বুঝতে সুবিধা হবে।
গাড়ি দিয়ে মূর্তির কাছাকাছি নেমেছিলাম, কিন্তু বের হলাম এই সিঁড়ি বেয়ে। এখানে সম্পুর্ন সিঁড়ির অর্ধেক উচ্চতা দেখা যাচ্ছে। সিঁড়ির দুই পাশে পাথরের দেয়ালও ধাপে ধাপে নেমে এসেছে।
এখনও এই সিঁড়িগুলো তৈরী শেষ হয়নি। এটা শেষ হওয়ার পর যদি এদিক বেয়ে উঠতে হয় তাহলে খবর আছে!
পরের গন্তব্য খাড়া পাহাড়ের ঢালে অবস্থিত তেকিন চিড়িয়াখানা - নাম "রয়্যাল তেকিন প্রিজার্ভ"। তেকিন হল ভুটানের জাতীয় প্রাণী। এটা গরুর মত বড়, কিন্তু শরীরে ভেড়ার মত পশম। ধর্মীয় কোন একটা ব্যাপার জড়িত আছে এঁদের নিয়ে ...
চিড়িয়াখানার উঁচু ঢালু পথ বেয়ে যতই হাঁপিয়ে উঠেন না কেন, তেকিনের তাতে মন ভেঁজে না। দুরেই চুপচাপ বসে থাকে।
তেকিন না আসলে কি হবে হরিণগুলো কিন্তু ঠিকই কাছে চলে আসে
তেকিন না পেয়ে ওদের স্ট্যাচুর সাথেই ছবি তোলা হল
হোটেলে ফিরে দুপুরের খানা-পিনা করে ছোট্ট একটা ঘুম দেয়া হল। আজকের খাবারের নতুন আইটেম পণির মাসালা।
এবার বিকালে থিম্পু শহরে একটু হ্যান্ডিক্রাফটস কেনা কাটা করতে যাওয়া। মেয়েরা গেল দোকানে, আর আমি রাস্তাঘাটের ছবি তুলি।
ঝকঝকে শহর, পেছনে পাহাড়
তকতকে পরিষ্কার, ভীড় ভাট্টা ছাড়া সুশৃঙ্খল রাস্তাঘাট দেখলে মনেই হয় না এটা দক্ষিন এশিয়ার কোন জায়গা
ঐ যে দুরে একটা গ্যালারিওয়ালা চত্বর। ওটাই ক্লক টাওয়ার - যাকে সিটি সেন্টারও বলা হয়।
হঠাৎ একটা ময়লার গাড়ির আগমন। আর অমনি বিভিন্ন জায়গা থেকে লোকজন ময়লা নিয়ে এসে এসে দিয়ে গেল!
কেনাকাটার আসল কাজ আপাতত শেষ, তাই এখানে একটু ঘোরাঘুরি করি। কোত্থাও কোন ময়লা প্যাকেট, কাগজ পড়ে নাই।
ক্লক টাওয়ারকে নিয়ে ছবি তোলা
এটা হল থিম্ফু জং। এর কাছে গিয়ে শুনি রাষ্ট্রীয় অতিথি আসবে দেখে টুরিষ্ট যাওয়া বন্ধ। তাই আসার পথে দুর থেকে একটা ছবি নিলাম।
এই ধানক্ষেতের জমিগুলো নাকি মং(সন্যাসী?)দের। তাই এগুলোতে এখনও কোনো অবকাঠামো ওঠেনি। দুরে নদী, রাস্তা, ঘরবাড়ি দেখা যায়।
মোমো খাইতে মন চায়। তাই ফেরার পথে কেনা হল। ৩ প্লেট (১৫টি) মোমো, ভেতরে বাধাকপি আর পণির দেয়া: ১৮০ উঁগুলট্রাম। সাথে একটা ছোট ফানটা আরো ৫০ উঁগুলট্রাম।
রাতের খাবার। আমাদের আব্দারে নতুন আইটেম ভুটানিজ খাবার মরিচ, পণিরের ঝোল: নাম সম্ভবত এমাদাতসি

৭। ৪র্থ দিন: থিম্ফু থেকে পারো গমন, দুর থেকে টাইগার নেস্ট দেখা

সকালের বিদায়ী নাস্তা। আজকের নতুন আইটেম প্যানকেক।
গাইড মহোদয়ের চা খাওয়া শেষ হওয়ার অপেক্ষায়। বিদায় Pemaling Villa.
থিম্ফুর আরেকটা হ্যান্ডিক্রাফট মার্কেট। এখানে ৮৩টা দোকান রয়েছে।
জনগণ ক্রয়যোগ্য হ্যান্ডিক্রাফটের খোঁজে, আর আমি আকাশ বাতাসের ছবি তুলি। রাস্তা কিন্তু ওয়ান ওয়ে।
এই দোকানের মালিক আমাদের গাইড সাহেবের স্ত্রী ...
থিম্ফু থেকে পারো'র হাইওয়ে। রাজধানীকে ইন্টারন্যাশনাল এয়ারপোর্টে যুক্ত করেছে। তাই সবচেয়ে সুন্দর।
থিম্ফু থেকে পারো'র হাইওয়ে। লোকজন টয়লেটে যায়, আমি রাস্তার ছবি তুলি
হাইওয়ের টয়লেট ব্যবস্থা আসলেই খুব উন্নতমানের এবং পরিচ্ছন্ন। ১০ উঁগুলট্রাম দিয়ে ব্যবহার করা যায়।
থিম্ফু থেকে পারো'র হাইওয়ে।  আঁকা বাঁকা হলেও অনেক ভাল।
থিম্ফু থেকে পারো'র হাইওয়ে। টয়লেটের জন্য গাড়ি পার্কিং ব্যবস্থাও আছে। আমি অবশ্য আকাশ-পাহাড়ের ছবি তুলতেছিলাম।
পারো পৌঁছানোর ১০-১৫ মিনিট আগে নদীর সাথে দেখা করিয়ে দিলেন গাইড-ড্রাইভার সাহেব। এখানে একটা তার থেকে বেঞ্চে ঝুলে ঝুলে নদী পার হওয়ার ব্যবস্থাও আছে।
জুতা-মোজা খুলে আমিও ... ঠান্ডা পানিতে নেমে কন্যার ফূর্তি (গাড়িতে বসে থেকে ওর নাকি খারাপ লাগছিল, কিন্তু এখন একদম ফ্রেশ লাগছে)
 পারো নদীর সাথে দেখা। ছোট্ট একটা ভিডিও ক্লিপ

কোথাও কোথাও নদীর মাঝে চরও পড়েছে। ডানদিকের সাদা দাগটি আসলে একটা রাস্তা।
নতুন জায়গায় যাওয়ার আগেই থেমে একটা ঘরোয়া জায়গায় দুপুরের খাবার। এখানেও সেই তথাকথিত বাঙালি খাবার। বেগুনের চাট, মুরগীর ঝোল, সালাদ আর পিকল্স (আঁচার - মটরশুটি+মূলা)। রান্না খুবই সুস্বাদু। জায়গাটির নাম সোনম'স হোমস্টে।
বাসাটির সামনে আপেল গাছ। নিচে কাঠের গুড়ির মত সব বসার জায়গা। ওনার রান্না বান্নার সব তরিতরকারী নিজের ক্ষেতেই উৎপন্ন করা।
চলতি পথে ছবি তোলা। দুরে পাহাড়ের ভাঁজে ঘোলা কুয়াশা নাকি মেঘ বোঝা যাচ্ছে না।

পাকা রাস্তা, কাঁচা রাস্তার ঢালু উৎরিয়ে, আবার একটু পাকা রাস্তা তারপর হঠাৎ করেই এই পার্কিং লট। আমাদের আগামী দু'রাতের ঠিকানা: তেনজিংলিঙ্গ রিসর্ট।
ঢালু বেয়ে উঠে ভেতরের উঠান পেরিয়ে রিসেপশন। সেখানে আপেলের জুস দিয়ে অভ্যর্থনা।
নিচ তলার রুম। কিন্তু পার্কিং লট থেকে দেড় তলা উপরে। বারান্দাটাও দারুন!
এটার বাথরুমে শাওয়ারের জন্য আলাদা চেম্বারও আছে, তবে আগেরটার মত বাথটাব নাই।
কাঠের মেঝের রুম ... এখানকার ফ্রী ওয়াইফাইও ভাল।
বামদিকের ভবনের নিচের ডানদিকের দরজাটা আমাদের কক্ষের। ডানদিকের ভবনে রিসেপশন - ডাইনিং ইত্যাদি।
উঠানের বাকী অর্ধেক ...
এটা হল প্রবেশ পথ ... এখানেও দেড়তলার মত ঢাল বেয়ে উঠতে হয়! এখন আমরা টাইগার নেস্টের জায়গাটা ঘুরে আসবো।
ঐযে উপরে বিখ্যাত টাইগার নেস্ট মনেস্ট্রি। আরেকবার শুধু এটাতে চড়ার জন্যই ভুটানে আসতে হবে। উঠতে চার-ঘন্টার হাঁটা পথ।
এমনিতেই পাতলা বাতাসে হাসফাঁস অবস্থা, কে উঠবে অত উপরে? তাছাড়া আজকে সময়ও নাই। তাই ট্রেকিং পয়েন্টে হ্যান্ডিক্রাফটস কেনাকাটা করেই ফুড়ুৎ।
ডানদিকে দুইজন বাংলাদেশি ভদ্রলোক সেইরকম রাজা-উজির মারা গপ্পো জুড়েছেন। সম্ভবত ফ্যামিলির লোকজন এখনও ট্রেকিং থেকে ফেরেনি।
আসার পথে এমনিই গাড়ি থেকে ছবি-টবি তুলি।

যখন চিকন পাহাড়ি রাস্তা ছেড়ে চওড়া রাস্তায় আসলাম, মনে হল একটু ভিডিও করি।

ফিরে এসে সেই দেড় তলা ট্রেকিং করে রিসর্টে ঢোকা
রাতের ডিনার, বুফে। (Tenzinling Resort)
ডিনারের পর উঠানে বসে ক্লিকাই। বামদিকের ঐ উজ্জ্বল কক্ষ হল একটা সুভ্যেনিরের দোকান। সন্ধ্যার পরেই খোলে।
বামদিকের নিচতলা রিসেপশন। দোতলায় ডাইনিং।